‘চেয়ারেই মারা গেলেন আইনজীবী, কাছে গেল না কেউই’

0

কওমিকণ্ঠ ডেস্ক : রাজশাহী মহানগরীতে চেয়ার বসা অবস্থায় আইনজীবীর নাম কৃষ্ণ কমল দত্ত (৮৫) মারা গেছেন। তার মৃত্যুর পর দুই ঘণ্টা কেউ মরদেহের পাশে যায়নি। মরদেহটি চেয়ারের ওপরই ছিল। পরে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন মরদেহ সৎকারের ব্যবস্থা করেছে। আজ (২৬ জুন) শুক্রবার সকালে এ ঘটনা ঘটে।

তিনি নগরীর কুমারপাড়া এলাকার বাসিন্দা ছিলেন। কুমারপাড়া এলাকার কালিমাতা মন্দিরের পেছনের বাড়িটিই তার। বাড়িতে তিনি একা থাকতেন। কৃষ্ণ কমল নিঃসন্তান ছিলেন। তার স্ত্রী দীর্ঘদিন ধরেই তার সঙ্গে থাকেন না।

কৃষ্ণ কমল রাজশাহী এবং নাটোর জেলা জজ আদালত ও বিভাগীয় শ্রম আদালতে ওকালতি করতেন। প্রায় ১০ দিন ধরে তিনি জ্বর ও কাশিতে ভুগছিলেন। তবে তার শ্বাসকষ্ট ছিল না। করোনায় তার মৃত্যু হয়েছে ভেবে প্রতিবেশীরা কেউ মরদেহের কাছে যাননি। দুই ঘণ্টা মরদেহ চেয়ারেই ছিল।

মৃতের ছোট ভাইয়ের ছেলে সুইট কুমার দত্ত জানান, এ বাড়িতে কৃষ্ণ কমল দত্ত একাই থাকতেন। তার অসুস্থতার জন্য গত মঙ্গলবার তিনি নাটোরের সিংড়া থেকে এসেছেন। শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে তিনি বাইরে খাবার আনতে যান। কিছুক্ষণ পর এসে দেখেন চেয়ারে বসা অবস্থায় তিনি মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার কৃষ্ণ কমল দত্তকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

সুইট কুমার জানান, করোনার উপসর্গ আছে জেনে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক তাকে রাজশাহীর খ্রিস্টিয়ান মিশন হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। সেখানে চিকিৎসক কয়েকটি ওষুধ দেন। এরপর তাকে বাসায় পাঠিয়ে দেয়া হয়। তখন করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দিতে চাইলেও কৃষ্ণ কমলের নমুনা নেয়া হয়নি। মিশন হাসপাতাল থেকে তাকে জানানো হয়, করোনার পরীক্ষার প্রয়োজন নেই। বাসায় বিশ্রামে থেকে নিয়ম মেনে ওষুধ খেলেই তিনি সুস্থ হয়ে যাবেন।

কৃষ্ণ কমলের মৃত্যুর পর প্রতিবেশীরা বিষয়টি হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতাদের জানান। তারা খবর দেন কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনকে। দুপুর সাড়ে ১২টার পর কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের সদস্যরা স্বাস্থ্যবিধি মেনে মরদেহের কাছে যান। জীবাণুনাশক ছিটিয়ে মরদেহটি শ্মশানে নিয়ে যাওয়া হয়। সৎকারে কোয়ান্টামকে সহায়তা করে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ।

ভালো লাগলে শেয়ার করুন
  •  
  •  

Comment

Share.